ইয়াংগুনে রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়েছে বিমানের ফ্লাইট

0
56

মিয়ানমারের ইয়াংগুন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়েছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট ।

বুধবার সন্ধ্যায় ঝড়ের কবলে পড়ে ঘটা এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে । এ ঘটনায় ৩০জন আহত হয়েছেন; তবে কারোর অবস্থাই গুরুতর নয়।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ বলেন, বিকেল ৩টা ৪৫ মিনিটে বিজি-০৬০ উড়োজাহাজটি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে মিয়ানমারের রাজধানী ইয়াঙ্গুনের উদ্দেশে যাত্রা করে।

তিনি আরও বলেন, কানাডার বোম্বার্ডিয়ারের তৈরি ড্যাশ-৮ বিমানটিতে এক শিশুসহ ২৯ যাত্রী ছিলেন। এ ছাড়া ছিলেন দু’জন পাইলট এবং দুই ক্রু। উড়োজাহাজটি বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৬টা ২২ মিনিটে ইয়াঙ্গুন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণের সময় বৈরী আবহাওয়ার কারণে রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়ে।

মিয়ানমারে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মঞ্জুরুল করিম খান চৌধুরী জানান, দুর্ঘটনার খবর পাওয়ার সাথে সাথে তিনিসহ দূতাবাসের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে ছুটে যান। ১৯ জনকে ইয়াঙ্গুনের প্রধান হাসপাতালে এবং ১০ জনকে বিমানবন্দরের কাছে একটি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। তবে কারও অবস্থাই আশঙ্কাজনক নয়। আশা করা হচ্ছে তারা দ্রুতই সুস্থ হয়ে উঠবেন।

রাষ্ট্রদূত বলেন, দুর্ঘটনার কারণ জানতে তারা মিয়ানমার কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলছেন।

বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, বিমানটিতে বাংলাদেশ, ভারত, মিয়ানমার, কানাডা, চীন,  ফ্রান্স ও সুইজারল্যান্ডের যাত্রী ছিলেন। ইউএনবির খবরেবলা হয়েছে, দুর্ঘটনায় বিমানটির সব আরোহীই আহত হন।

ইয়াঙ্গুন থেকে বিমানের একটি সূত্র থেকে জানা যায়, রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়ার পরপরই উড়োজাহাজ থেকে যাত্রী এবং ক্রুদের নামিয়ে আনা হয়। এর মধ্যে ১৫ জনকে গুরুতর আহত অবস্থায় পাওয়া যায়। তাদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সূত্রটি থেকে আরও জানায়, আহতদের মধ্যে পাইলট শামীম নজরুলও রয়েছেন। তিনি মাথায় বড় ধরনের চোট পেয়েছেন। বাকি যাত্রীদের প্রয়োজন অনুযায়ী প্রাথমিক চিকিৎসা চলছে।

মিয়ানমার টাইমস থেকে জানা যায়, উড়োজাহাজটির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এর সামনের অংশ অনেকটাই দুমড়ে-মুচড়ে গেছে। দুর্ঘটনার ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য ঢাকায় জানানো হয়েছে। ঢাকার নির্দেশনা অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে। বিমানবন্দরটি এই মুহূর্তে বন্ধ রাখা হয়েছে।

ইয়াংগুন বিমানবন্দরে রানওয়ের পাশে ঘাসের মধ্যে পড়ে থাকা বিমান বাংলাদেশের একটি দুর্ঘটনাকবলিত ফ্লাইটের ছবি প্রকাশ করেছে সংবাদ মাধ্যম।

এই বিষয়ে কর্তৃপক্ষ বলছে, এই বিমানবন্দর চালু না হওয়া পর্যন্ত এখানকার ফ্লাইটগুলো অবতরণ করবে রাজধানী নাইপিদোর বিমানবন্দরে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here